সাংস্কৃতিক চর্চা মানুষের মানবিক গুনাবলী বিকশিত হয়,ভ্রাতৃত্যের বন্ধন সুদৃঢ় করে:জেলা প্রশাসক

॥ নাঈম ইসলাম-আশফিক মাহীন ॥

সংস্কৃতি চর্চার মাধ্যমে মানুষের মধ্যে মানবিক গুনাবলী বিকশিত হয়, ভ্রাতৃত্যের বন্ধন সুদৃঢ় হয়। সাংস্কৃতিক চর্চা যে সমাজে যতবেশি হবে, সেই সমাজ তথা এলাকার মানূষগুলোর ভবিষ্যৎ ততটাই সৃজনশীল হবে এবং সেসব এলাকার মানুষগুলো সমাজ দরদী ও ভালো মানুষ হিসেবে গড়ে উঠবে মন্তব্য করে রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ বলেছেন, একটি সূন্দর সমাজ বিনির্মাণে এলাকার গুণীজনদের ব্যাপক ভূমিকা থাকে। গুণি বিশিষ্ট্য ব্যক্তিদের ভালো কাজগুলোর মাধ্যমেই একটি সুশৃঙ্খল সমাজ ব্যবস্থা গড়ে উঠে।

শনিবার বিকেলে রাঙামাটি শিশু একাডেমী মিলনায়তনে আয়োজিত গুণীজন সম্মাননা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জেলা প্রশাসক একেএম মামুনু রশিদ এসব কথা বলেন। উক্ত অনুষ্ঠানে রাঙামাটি সাংস্কৃতিক অঙ্গনের অন্যতম সাংস্কৃতিক সংগঠন তপোসুর সাংস্কৃতিক একাডেমির ৫ম বর্ষপূর্তিতে রাঙামাটির দুইজন বিশিষ্ঠ ব্যক্তি নিরূপা দেওয়ান এবং সাংবাদিক সুনীল কান্তি দে’কে সম্মাননা প্রদান করা হয়।

এসময় প্রধান অতিথি বলেন, গুনি ব্যক্তিরা তাদের সৃষ্টিশীল, মেধা মনন কাজ দিয়েই সমাজে প্রতিষ্ঠিত হয়ে গুণি ব্যক্তি হিসেবে খ্যাতি লাভ করেন। তাদের জীবন চর্চা তথা আলোকবর্তিকার সামান্য অংশটুকু নিয়ে যদি আমরা বর্তমান প্রজন্ম সামনের পথগুলো এগিয়ে যেতে পারি তাহলেই এই ধরনের সংবর্ধণা অনুষ্ঠান সার্থকতা লাভ করবে।

রাঙামাটির শিক্ষা-সংস্কৃতি ও সমাজের মানুষের জন্য তথা দেশের জন্য কাজ করা, মানুষের বিপদে তাদের পাশে দাঁড়ানোসহ মানুষের কল্যাণে সামাজিক কর্মকান্ডগুলোতে নিজেদের শতভাগ অংশগ্রহণ নিশ্চিত করেছেন বলেই আজকে বিশিষ্ট্য ব্যক্তি সুনীল কান্তি দে ও নিরূপা দেওয়ানকে সংবর্ধিত করা হয়েছে।

সামাজিক ও সাংস্কৃতিক কর্মকান্ডের মাধ্যমে নিজেদের মেধা বিকিয়ে দিয়ে রাঙামাটিবাসীর মনে স্থান করে নিয়েছেন আমাদের রাঙামাটি জেলার বিশিষ্ট্য ব্যক্তিত্ব সুনীল কান্তি দে ও নিরূপা দেওয়ান। আমাদের মাঝে এসকল গুনি ব্যক্তিত্ব যুগ যুগ ধরেই বেঁেচ থাকবেন মন্তব্য করে জেলা প্রশাসক বলেন, এসকল বিশিষ্ট্য গুণিজনদের জীবনাচার অনুসরনের মাধ্যমে মানুষের কল্যাণে বর্তমান প্রজন্মকে নিবেদিত হতে হবে।

সংগঠনের সভাপতি সুবল বিশ্বাসের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক মিলন ধরের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন সংবর্ধিত গুণীজন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও মানবাধিকার কর্মী নিরুপা দেওয়ান, বিশিষ্ট সাংবাদিক, ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব সাংবাদিক সুনীল কান্তি দে, রাংঙ্গামাটি সরকারি কলেজে ইংরেজী বিভাগের সহকারি অধ্যাপক অনির্বাণ বড়ুয়া, ধ্রুব সংস্কৃতিক পরিষদের কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সরূপ দেবনাথ, কাপ্তাই প্রেস ক্লাব এবং সাংস্কৃতিক একাডেমির সাধারণ সম্পাদক ঝুলন দত্ত।

এর আগে মঙ্গল প্রদীপ প্রজ্জ্বলনের মাধ্যমে অনুষ্ঠানের শুভ সূচনা করেন রাংঙ্গামাটি জেলা শিল্পকলা একাডেমির কালচারাল অফিসার অনুসিনথিয়া চাকমা। উক্ত অনুষ্ঠানে বার্ষিক সঙ্গীত পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের সনদ পত্র বিতরণ, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা এবং মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানও অনুষ্ঠিত হয়েছে।

এদিকে তপোসুর সাংস্কৃতিক একাডেমির ৫ম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে জেলা শিশু একাডেমিতে সংগঠনের আয়োজনে শিশু চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়। এতে শতাধিক প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেন। পরে সমবেত তবলা লহড়া, সম্মেলক গান এবং সংগঠনের শিল্পিদের একক গান পরিবেশনার মাধ্যমে অনুষ্ঠান শেষ হয়।