সমতলে কোটি টাকার চাঁদাবাজি হলেও সরকারের মাথাব্যাথা শুধুমাত্র পাহাড় নিয়ে!

॥ সৌরভ দে ॥

পার্বত্য চট্টগ্রামের চাঁদাবাজি ও অস্ত্রবাজি প্রসঙ্গে উষাতন তালুকদার বলেন, অভিযোগ করা হয় পার্বত্য চট্টগ্রামে চাঁদাবাজি অস্ত্রবাজি রয়েছে। সমতলের কোটি কোটি টাকার চাঁদাবাজি হয় প্রতিদিন কিন্তু ঐসব নিয়ে সরকারের মাথা ব্যাথা নেই। চাঁদাবাজি শুধু পার্বত্য অঞ্চলে নয় সারাদেশেই হয়। পার্বত্য অঞ্চলের চাঁদাবাজিকে বড় করে দেখা হয় দেখানোও হয় কিন্তু পার্বত্য চট্টগ্রামে চাঁদাবাজি কেন হয়, সরকারকে তা অনুধাবন করতে হবে।

“পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তি বাস্তবায়নসহ জুম্ম জাতির অস্তিত্ব সুরক্ষায় এগিয়ে আসুন” এই প্রতিপাদ্যে রাঙামাটিতে মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার ৩৬তম মৃত্যুবার্ষিকী ও স্মরণ সভা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। রবিবার সকাল ১০টায় জেএসএস’র উদ্যোগে জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে এ স্মরণ সভা অনুষ্ঠিত হয়।

তিনি আরো অভিযোগ করে বলেন, একটি কুচক্রী মহল পার্বত্য চট্টগ্রামের জুম্মদের ভুল বুঝিয়ে বিপদের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। আমরা বাংলাদেশের নাগরিক নিজেদের জন্মভূমিতে স্বাধীনভাবে থাকতে চাই। এসময় মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমার জীবনী উপস্থাপন করে তিনি বলেন, মানবেন্দ্র নারায়ণ লারমা স্বাধীন বাংলাদেশের একজন সাংসদ ছিলেন, পার্বত্য চট্টগ্রামের মানুষদের জন্য তাঁর অবদান অপরিসীম কিন্তু আঞ্চলিক পরিষদ ও জেলা পরিষদ এর কোন প্রতিনিধি মানবেন্দ্র নারায়ন লারমা র জন্মবার্ষিকী কিংবা মৃত্যুবার্ষিকীতে কোন প্রকার শ্রদ্ধা জানাতে আসেন না। এটি অত্যন্ত দুঃখজনক ও আক্ষেপের বিষয়।

পার্বত্য চট্টগ্রাম আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য গৌতম কুমার চাকমা, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ মংসানু চৌধুরী, বাংলাদেশ আদিবাসী ফোরাম, চট্টগ্রাম অঞ্চলের সভাপতি প্রকৃত রঞ্জন চাকমা, এমএন লারমা মেমোরিয়াল ফাউন্ডেশনের আহ্বায়ক বিজয় কেতন চাকমা, শিক্ষাবিদ, লেখক ও সাংস্কৃতিক কর্মী শিশির চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সহসভাপতি সুমন মারমা প্রমুখ সভায় বক্তব্য রাখেন।