শান্তি চুক্তির বর্ষপূর্তিতে রাঙামাটিতে জেএসএস ও জেলা পরিষদের পৃথক কর্মসূচী!

॥ সাব্বির-নির্জন ॥

নানা কর্মসূচীর মধ্যদিয়ে ২ ডিসেম্বর রাঙামাটিতে পার্বত্য চট্টগ্রাম চুক্তির ২২তম বর্ষপূর্তি পালিত হয়েছে। এই উপলক্ষে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি ও রাঙামাটি পার্বত্য জেলা পরিষদ আলাদা ভাবে র‌্যালী ও আলোচনা সভার আয়োজন করে।

রাঙামাটি জেলা পরিষদ কর্তৃক পার্বত্য শান্তিচুক্তির ২২বছর পূর্তি উপলক্ষে রাঙামাটি কলেজ গেইট থেকে এক বর্ণাঢ্য র‌্যালী বের করেন। এবং তা প্রধান সড়কসমূহ প্রদক্ষিণ করে পরে রাঙামাটিস্থ ক্ষুদ্র নৃ গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ইনিষ্টিটিউট মিলনায়তনে আলোচনা সভায় মিলিত হয় । এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার ,এমপি। এসময় জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বৃষ কেতু চাকমার সভাপতিত্বে রাঙামাটি রিজিয়ন কমান্ডার বিগ্রেডিয়ার জেনারেল মোঃ মাইনুর রহমান, জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ,পুলিশ সুপার আলমগীর কবির, আঞ্চলিক পরিষদের সদস্য হাজ্বী কামাল উদ্দিন সহ অন্যান্যরা উপস্থিত ছিলেন।

সভায় বক্তারা বলেন, আওয়ামীলীগ সরকার এই পার্বত্য শান্তি চুক্তি করেছে এ সরকারই তার অধিকাংশই বাস্তবায়ন করেছে। সরকার ভূমি কমিশন আইন পাশ করেছে। শান্তিচুক্তির বাকি অংশগুলোও দ্রুত বাস্তবায়ন হবে। তবে এর জন্যে সকলের সহযোগিতা কামনা করেন বক্তারা। এ ছাড়া বিকালে রাঙামাটি চিংহ্লা মং মারী ষ্টেডিয়ামে রাঙামাটি জেলা পরিষদ ও রাঙামাটি রিজিয়নের উদ্যোগে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।

অপরদিকে রাঙামাটি জিমনেসিয়াম প্রাঙ্গনে পার্বত্য চট্টগ্রাম জনসংহতি সমিতি কর্তৃক আয়োজিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথি ছিলেন রাঙামাটির সাবেক সংসদ সদস্য ঊষাতন তালুকদার। উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন, শ্যামরতন চাকমা সদস্য জনসংহতি সমিতি রাঙামাটি জেলা কমিটি। বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, মাইদুল ইসলাম (অধ্যাপক চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়)। এছাড়া সভায় জন সংহতি সমিতির অন্যান্য সদস্যরা বক্তব্য রাখেন।

বক্তারা বলেন, পার্বত্য চুক্তির পূর্ণবাস্তবায়ন না হওয়ায় পাহাড়ে অশান্তি সৃষ্টি হয়েছে। আজ ২২ বছর পরও সরকার প্রতিনিয়ত পার্বত্য চুক্তি বাস্তবায়ন নিয়ে তালবাহানা করছে। এই চুক্তি যদি বাস্তবায়ন যদি না হয় পাহাড়ি জনগন এর বিকল্প ব্যবস্হা নিতে বাধ্য হবে।