টিসিবি’র পেয়াঁজে রাঙামাটির বাজারে স্বস্তি! ক্রেতাদের উপচে ভিড়

॥ আলমগীর মানিক ॥

জেলা প্রশাসকের চাপের মুখে অবশেষে রাঙামাটি শহরে টিসিবি’র পেয়াজ বিক্রি শুরু করেছে জেলার লাইসেন্সভূক্ত ৭ জন ব্যবসায়ি। মঙ্গলবার বেলা এগারোটা থেকে রাঙামাটি শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে জেলা প্রশাসন ও পুলিশের প্রত্যক্ষ সহায়তায় টিসিবির পেয়াঁজ বিক্রি শুরু হয়েছে।

এতে করে স্থানীয় হাট-বাজারগুলোতে অনেকটাই স্বস্তি ফিরে এসেছে। ৪৫ টাকা কেজি দরে পেয়াঁজ কিনতে স্থানীয় বাসিন্দাদের দীর্ঘ লাইন ধরার চিত্র ছিলো চোখে পড়ার মতো।স্থানীয় দোকানগুলোতেও পেয়াজের দর কমেছে। বর্তমানে রাঙামাটিতে খোলা বাজারে প্রতিকেজি পেয়াঁজ বিক্রি হচ্ছে ৮০ টাকায় এবং ১৬০ টাকায়।

টিসিবি’র কার্যক্রম উদ্বোধন করতে এসে রাঙামাটির অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক এসএম শফি কামাল জানিয়েছেন, প্রতিজন ক্রেতাকে সর্বোচ্চ দুই কেজি করে পেয়াঁজ কেনার সুযোগ দেওয়া হয়েছে। তিনি বলেন, জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পরিবহন খরচ দিয়ে আমরা প্রাথমিকভাবে টিসিবি কর্তৃপক্ষ থেকে ব্যবসায়িদের মাধ্যমে ১০ মেট্রিক টন পেয়াঁজ এনেছি।

সেগুলো শহরের বিভিন্ন প্রান্তে বিক্রি করা হবে স্টক থাকা পর্যন্ত। চাহিদার ভিত্তিতে আরো পেয়াঁজ আনা হবে এবং মূল্য স্বাভাবিক না হওয়া পর্যন্ত এই কার্যক্রম অব্যাহত রাখা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

এদিকে মঙ্গলবার সকাল থেকে শহরের স্টেডিয়াম এলাকায় এবং রিজার্ভ বাজার এলাকায় পেয়াঁজ বিক্রি শুরু হলে স্থানীয়রা হুমড়ি খেয়ে পড়ে।

পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখতে এবং শৃঙ্খলা বজায় রাখতে তিনজন করে নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট এসময় কর্তব্যরত ছিলেন। পুলিশ সদস্যদের সহায়তা টিসিবি’র ডিলাররা গাড়িতে রেখে এসব পেয়াঁজ বিক্রি করেন বিকেল পর্যন্ত।

টিসিবি’র ব্যবসায়িরা জানিয়েছেন, রাঙামাটি শহরে আগামী দু’দিন ভোজ্যপণ্য বিক্রি করবেন তারা। এগুলো শেষ করে রাঙামাটি জেলা প্রশাসকের সাথে কথা বলে আবার পুনরায় বিক্রি শুরু করা হবে।

এদিকে ক্রেতা সাধারণ জানিয়েছেন, সকালেই স্থানীয় মুদি দোকান থেকে ৫০ টাকা ২৫০গ্রাম পেয়াঁজ কিনেছিলেন তারা। কিন্তু টিসিবির গাড়ি থেকে ৫০ টাকায় মিলছে এককেজি পেয়াঁজ।

এদিকে বাজার ব্যবসায়ি সমিতির সভাপতি আনোয়ার মিয়া বানু জানিয়েছেন, জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এই উদ্যোগের ফলে সাধারণ ব্যবসায়ি ও দরিদ্র নাগরিকরা স্বল্পমূল্যে পেয়াঁজ কেনার সুযোগ পাচ্ছে এতে করে তাদের অনেক উপকার হচ্ছে।

রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশীদ জানিয়েছেন পেঁয়াজের দাম বৃদ্ধি পাওয়ায় রাঙামাটির দরিদ্র মানুষের কথা ভেবে টিসিবি’র মাধ্যমে পেঁয়াজ বিক্রির সিদ্ধান্ত নিয়েছি। সেই লক্ষ্যে টিসিবি’র ব্যবসায়ীদের সাথে বৈঠক করি এবং জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে পণ্য রাঙামাটি আনতে পরিবহন খরচ প্রদানের আশ্বাস দিলে ব্যবসায়ীরা পণ্য বিক্রি করতে রাজি হয়।