রাঙ্গামাটিতে সোয়াক’র প্রশিক্ষণ ভবনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর ত্রিপুরা, এনডিসি বলেনেছ, যত্ন, ভালবাসা দিয়ে মানুষ করলে অটিস্টিক শিশুরা ও একটি সুন্দর জীবন লাভ করতে পারে। এদের মধ্যে অনেক প্রতিভা রয়েছে। তাদের প্রতিভাগুলো খুঁজে বের করতে হবে এবং প্রতিভার বিকাশ ঘটাতে হবে। এজন্য বিশেষ করে অভিভাবকদের অটিজম শিশুর প্রতি অধিকতর যত্নবান হতে হবে।

শনিবার (১৪ ডিসেম্বর) সকালে শহরের ভেদভেদি রাঙ্গাপানি এলাকায় ৮০শতক জায়গায় সোসাইটি ফর দি ওয়েলফেয়ার অব অটিস্টিক চিলড্রেন (সোয়াক) এর প্রশিক্ষণ ভবনের ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন শেষে আলোচনাসভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন ।

আলোচনাসভায় সোসাইটি ফর দি ওয়েলফেয়ার অব অটিস্টিক চিলড্রেন (সোয়াক) এর চেয়ারপার্সন সুবর্ণা চাকমা, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সদস্য পরিকল্পনা ড. প্রকাশ কান্তি চৌধুরী, ইউএনডিপি’র ন্যাশনাল প্রজেক্ট ম্যানেজার প্রসেনজিৎ চাকমা, সোয়াকের সচিব সাবিনা হোসেন, সোয়াকের কোষাধ্যক্ষ সৈয়দা শামীমা আখতার, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের সহকারী প্রকৌশলী ত্রয়া সরকার, সোয়াকের ডেপুটি ডাইরেক্টর মোঃ মফিজুল ইসলাম’সহ এলকার গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ উপস্থি ছিলেন।

আলোচনাসভায় উন্নয়ন বোর্ড চেয়ারম্যান নব বিক্রম কিশোর বলেন, অটিজম আক্রান্ত শিশুরা আমাদের সমাজেরই অবিচ্ছেদ্য অংশ। অনেক সুস্থ মানুষ যা পারে না সেই সুপ্ত প্রতিভা তাদের রয়েছে। আমাদেরকেই সেই সুপ্তপ্রতিভাগুলো বিকশিত করার সুযোগ করে দিতে হবে। তাদের উপযোগী শিক্ষা, চিকিৎসা ও পরিচর্যার মাধ্যমে মানুষ হিসাবে বেঁচে থাকার অধিকার প্রতিষ্ঠা করে দিতে হবে। তিনি বলেন, এদের সাথে ভাল আচরনের মাধ্যমে তার চাহিদা অনুযায়ী ব্যবস্থা নিতে হবে। তিনি অভিভাবকদের পাশাপাশি অটিস্টিকদের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের সুপ্ত প্রতিভা বিকাশের সুযোগ করে দেওয়ার জন্য সকলের আহবান জানিয়েছেন।

প্রসঙ্গত, তিনি বলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কন্যা সায়মা ওয়াজেদ পুতুল অটিজমের উপরে প্রচুর কাজ করেছেন। তিনি ডব্লিউএইচও থেকে “এক্সেলেন্ট ইন মেন্টাল হেলথ” পুরস্কার পেয়েছেন।