ভালোবাসা দিবসে রাঙ্গামাটিতে প্রাণ হারালো ৬জন, নিখোঁজ ৩

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

বিশ্ব ভালোবাসা দিবসে রাঙ্গামাটিতে পৃথক পৃথক ৩ দুর্ঘটনায় প্রাণ হারিয়েছে ৬জন, নিখোঁজ হয়েছে আরো ৩জন। এর মধ্যে ১টি দুর্ঘটনা স্থলপথে ও বাকি দুটি জলপথে ঘটেছে। শুক্রবার সকাল নয়টায় রাঙামাটির সাপছড়িতে পিকনিক বাস উল্টে প্রথম দুর্ঘটনাটি ঘটে। এতে বাসটির হেল্পার ঘটনাস্থলে নিহত হয় ও ২৬জন আহত হয়।

জানা যায়, ৬০ জন যাত্রী নিয়ে চট্টগ্রামের কর্ণফুলীর পতেঙ্গা থেকে রাঙামাটির উদ্দেশ্যে পিকনিকে আসছিল বাসটি(চট্রগ্রাম ব ০৫-০০১৫)। রাঙামাটির সাপছড়িতে এসে বাসটি উল্টে গেলে হেল্পার নিহত হয়। রাঙামাটি জেনারেল হাসপাতালে ২৬ জনকে চিকিৎসা দেওয়া হয়। তারমধ্যে ৪ জনকে প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়ার পরপরই চট্টগ্রাম মেডিকেল হাসপাতালে প্রেরন করা হয়। বাসের যাত্রীরা সবাই পতেঙা ট্রেন্ডেক্স ফার্নিচার গার্মেন্টসের কর্মী বলে জানা গিয়েছে।

অন্যদিকে, জেলা শহরের ডিসি বাংলা সংলগ্ন এলাকায় চট্টগ্রাম ফিরি ফোর্ট থেকে আগত ১৯ জন পর্যটক পর্যটন ঝুলন্ত ব্রীজ থেকে বি-২ ফাইবার বোট দিয়ে ডিসি বাংলা যাওয়ার পথে উল্টে গিয়ে ঘটনা স্থলে ৫ জন মারা যায়।নিহতরা হলেন, রিনা(১৬),শিলা(২৬),আছমা(৩০),আফরোজা(৩০) ও ১জনের নাম অজ্ঞাত রয়েছে।

এদিকে ১২৭ জন যাত্রী নিয়ে আরেকটি বোট ডুবীর ঘটনা ঘটে কাপ্তাই উপজেলাধীন কর্নফুলী নদীতে।আন্তর্জাতিক কৃষ্ণ ভাবনামৃত সংঘের (ইসকন) পিকনিক বোটটি ডুবে যাওয়ার ঘটনায় তাৎক্ষনিকভাবে পিকনিক বোট থেকে অর্ধশতাধিক ব্যক্তিকে উদ্ধার করা হলেও এখনো বিনয় (০৫), টুম্পা মজুমদার (৩০) ও দেবলীলা (১০) ৩ জন নিখোঁজ রয়েছে বলে জানা গেছে।

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী সেনাবাহিনী, পুলিশ, নৌবাহিনী ও ফায়ারসার্ভিসের যৌথ সমন্বয়ে উদ্ধার ততপরতা চালানো হচ্ছে। নিখোজের সংখ্যা বাড়তে পারে বলে ধারনা করছে প্রশাসন। এদিকে ঘটনার পরপরই প্রশাসনের উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তাগন এবং বাহিনীগনের প্রধানগণ ঘটনাস্থলে গিয়ে সার্বিক পরিস্থিতি পর্যবেক্ষন করছেন।