ব্রেকিং নিউজ

অরণ্য রক্ষায় রাঙামাটিতে ২৭২ বন মামলা: ৬ মাসে সাজা হয়েছে দেড় শতাধিক আসামীর

॥ আলমগীর মানিক ॥

সশস্ত্র সন্ত্রাসীদের দখলে থাকা পাহাড়ের বনাঞ্চলগুলো গাছ চুরি হওয়ার বিষয়টি দীর্ঘ দিনের অভিযোগ। বন উজাড় হওয়া থেকে শুরু করে গাছ পাচার নিয়ে নানা অভিযোগের প্রেক্ষাপটেও সুখবর পাওয়া গেলো যে, পাচারের হার কমতে শুরু করেছে। গাছ চোর ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে স্থানীয় প্রশাসনিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সমন্বিত প্রচেষ্টায় পার্বত্যাঞ্চলের সংরক্ষিত বনাঞ্চল ও প্রাকৃতিক এবং ব্যক্তিগত বনগুলোতে বিগত কয়েক দশকের লুটপাটের মহোৎসব ইতিমধ্যেই ৫০ শতাংশ কমে এসেছে বলে জানিয়েছে বন বিভাগ কর্তৃপক্ষ। আইনি ব্যবস্থা এবং ধারাবাহিক অভিযান পাচারকারীদের থামতে বাধ্য করছে বলে দাবি করেছে বনবিভাগ সূত্র।

সূত্রমতে সাম্প্রতিক সময়ে রাঙামাটির আদালতের মাধ্যমে অন্তত দেড় শতাধিক আসামী বনজ সম্পদ ধ্বংসের মামলায় সাজাপ্রাপ্ত হয়ে জেলে গেছে। তারমধ্যে একজন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যানও রয়েছে। রাঙামাটিস্থ পার্বত্য চট্টগ্রাম দক্ষিণ বন বিভাগ সূত্রে প্রাপ্ত তথ্যে জানাগেছে, বিগত সোয়া এক বছরে রাঙামাটি জেলাধীন বনাঞ্চলগুলোতে সংঘবদ্ধ কাঠচোর ও বনবিভাগের জমি অবৈধ দখলকারি সিন্ডিকেট এর দৌরাত্ম ঠেকাতে বনবিভাগ কর্তৃপক্ষ অন্তত ২৭২টি মামলা রুজু করার পাশাপাশি প্রায় আড়াই কোটি টাকারও অধিক অর্থ রাজস্ব আদায় করেছে।

এছাড়াও অবৈধভাবে দখল হয়ে যাওয়া সংরক্ষিত বনাঞ্চলের অন্তত ২৫ একর জমিও উদ্ধার করেছে বলে নিশ্চিত করেছেন দক্ষিণ বন বিভাগের সদর রেঞ্জার মো: মোশারফ হোসেন। তিনি জানিয়েছেন, রাঙামাটির আদালতে চলমান রয়েছে ২৬০টি মামলা। এছাড়া ঢাকায় উচ্চ আদালতে সিভিল কোর্টে চলমান রয়েছে ১০টি রিট পিটিশন ও ২টি সিভিল শ্যূট মামলা। বিগত ছয় মাসে দক্ষিণ বনবিভাগের মাধ্যমে ৮২টি মামলা নিঃস্পত্তি হয়েছে। তারমধ্যে ৬০টি মামলায় অন্তত দেড় শতাধিক আসামীর সাজা হয়েছে। বনবিভাগের এই ধরনের সফলতা বিগত বছরগুলোতে আর কখনো দেখা যায়নি।

এদিকে রাঙামাটির আদালতে বনবিভাগের পক্ষে মামলা দেখাশোনা করার দায়িত্বে থাকা ফরেষ্টার আমজাদ হোসেন জানিয়েছেন আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক গত ডিসেম্বরে ১৬টি,জানুয়ারীতে-১৩টি এবং ফেব্রুয়ারী মাসে নিস্পত্তি হয়েছে ৯টি মামলা। সদর রেঞ্জেই বিগত ২০১৯ সালের ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত তিন মাসে ৩৮টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। এসব মামলার বিপরীতে সাজা হয়েছে ৪৯ জনের।

২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের ৬ মাসে প্রায় ১০ হাজার ঘনফুট সেগুন, গামারী ও করই প্রজাতির কাঠ ও ১৫ টি ইঞ্জিন চালিত বোট ও মিনিট্রাক আটক করতে সক্ষম হয়েছে। এর আগে ২০১৮-২০১৯ অর্থ বছরে অবৈধ কাঠ পাচার রোধে অভিযান পরিচালনা করে প্রায় ১৩ হাজার ঘনফুট সেগুন, গামারী,ও করই প্রজাতির কাঠ জব্দ ২০টি ইঞ্জিন চালিত বোট ও মিনিট্রাক আটক করেছে দক্ষিণ বনবিভাগ কর্তৃপক্ষ।

বন বিভাগের মামলা পরিচালনার দায়িত্বে থাকা সদর রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তা মোশারফ হোসেন জানিয়েছেন, আমি কোর্টে মামলা চালানোর দায়িত্ব পেয়েছি মাত্র ছয় মাস হলো। এই ছয়মাসে ৬০ মামলায় প্রায় দেড় শতাধিক আসামীর সাজা আদালতের মাধ্যমে নিশ্চিত করা হয়েছে। আসামীদের মধ্যে রাজনৈতিক নেতা থেকে শুরু করে প্রভাবশালী অনেকেই রয়েছে। তিনি জানান, আমি চাকুরি জীবনে দেশের বিভিন্ন জেলায় চাকুরি করেছি। কিন্তু একমাত্র রাঙামাটিতেই কোনো ধরনের রাজনৈতিক হস্তক্ষেপ বা বড় ধরনের কোনো চাপ পাইনি।

এখানকার রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দসহ সেনাবাহিনী, বিজিবি, পুলিশ, আনসার ব্যাটালিয়ন থেকে শুরু করে আমাদের বনবিভাগের সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে সার্বিক সহযোগিতা পেয়েছি। যার ফলে সরকারী বনাঞ্চল ও প্রাকৃতিক বনাঞ্চল ধ্বংসকারিদের বিরুদ্ধে মামলা করা, তাদের ধরে আদালতে সোপর্দ করা থেকে শুরু করে মামলাগুলো সুষ্টভাবে পরিচালনা করে আদালতকে তার প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্ত দিতে পেরেছি। সেই আলোকে মাননীয় আদালত আসামীদের শাস্তি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, পাহাড়ের অনেক বাসিন্দা বিগত দিনগুলোতে তেমন একটা সহযোগিতা করতোনা, কিন্তু বর্তমানে বনবিভাগের ব্যাপক সচেতনতামূলক ব্যাপক কর্মসূচী বাস্তবায়নের ফলে মানুষের মাঝে সচেতনতা পূর্বের চেয়ে অনেকগুণ বেশি বৃদ্ধি পেয়েছে তাই আমরাও সঠিক সময়ে সঠিক তথ্য স্থানীয়দের কাছ থেকে পাচ্ছি। সেই মোতাবেক স্থানীয় প্রশাসনের সহায়তায় অভিযান পরিচালনা করে বন ধ্বংসকারি চক্রের সদস্যদের হাতেনাতে ধরতে পারছি এবং তাদের শাস্তিও নিশ্চিত হচ্ছে। স্থানীয়দের মাঝে নিজেদের সম্পদ রক্ষায় সচেতনতা বৃদ্ধি যতবেশি হবে ততই পাহাড়ের বনজ উজার হওয়া থেকে রক্ষা পাবে বলেও মন্তব্য করেন ফরেষ্টার মোশারফ হোসেন।