বঙ্গবন্ধুর প্রথম মন্ত্রীত্ব

১৯৫৪ সাল। নির্বাচনে যুক্তফ্রন্টের জয়। পূর্ব পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হলেন শেরেবাংলা এ কে ফজলুল হক। তড়িঘড়ি করে মন্ত্রীসভা করলেন তিনি। ঠাই হলো না আওয়ামী লীগের কারও।

বঙ্গবন্ধু তখন টাঙ্গাইলে, মওলানা ভাসানীর সঙ্গে একটি কর্মিসভায় যোগ দিয়েছেন। তিনি ভাষণ দেওয়া অবস্থায় টেলিগ্রাম পেলেন, প্রধানমন্ত্রী তাকে ঢাকায় যাওয়ার অনুরোধ করেছেন। বঙ্গবন্ধু ঢাকায় আসার পর শেরেবাংলা তাকে বললেন, ‘তোকে মন্ত্রী হতে হবে। আমি তোকে চাই, তুই রাগ করে না বলিস না। তোরা সকলে বসে ঠিক কর, কাকে কাকে নেওয়া যেতে পারে।’

উত্তরে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘শহীদ সাহেব অসুস্থ হয়ে পড়েছেন, তার অনুমতি দরকার। আর মওলানা সাহেব উপস্থিত নাই, তার সাথেও আলোচনা করতে হবে।’

অসুস্থ হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ফোনে কথা বলতে না পারলেও জামাতার মাধ্যমে জানালেন, তার আপত্তি নেই। এদিকে সম্মতি দিলেন ভাসানীও। এরপর প্রথমবারের মতো পূর্ব পাকিস্তানের মন্ত্রিসভায় যুক্ত হলেন বঙ্গবন্ধু। সমবায় ও কৃষি উন্নয়ন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হলো তাকে। তখন তার ৩৪ বছর বয়স। মন্ত্রিসভার তিনিই ছিলেন সবচেয়ে কম বয়সী সদস্য।

তথ্য সূত্রঃ 

‘অসমাপ্ত আত্মজীবনী’,

দেবব্রত দেব রায়ের ‘বঙ্গবন্ধুর জীবনে স্মরণীয় ঘটনা’

আবদুল গাফফার চৌধুরীর ‘ধীরে বহে বুড়িগঙ্গা’

এস এ করিমের ‘শেখ মুজিব ট্রায়াম্ফ অ্যান্ড ট্র্যাজেডি’