হার্ড লাইনে প্রশাসনঃ রাঙামাটিতে আত্মগোপনে থাকা প্রবাসীদের বিরুদ্ধে শীঘ্রই ব্যবস্থা

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

নভেল করোনা ভাইরাসের সম্ভাব্য বিস্তার ঠেকাতে বেশ কঠোর হচ্ছে রাঙামাটির প্রশাসন যন্ত্র। মানবদেহের মারাত্মক শত্রু করোনা ভাইরাস কর্তৃক আক্রমনের হাত থেকে রাঙামাটিতে বসবাসরত নাগরিকদের রক্ষায় হোম কোয়ারেন্টাইনের পাশাপাশি আত্মগোপনে থাকা প্রবাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ।

তিনি জানান, জনশক্তি অফিসের মাধ্যমে প্রাপ্ত তথ্যানুসারে রাঙামাটির প্রায় ৯ হাজার নাগরিক বিদেশে প্রবাসী হিসেবে কর্মরত থাকে। এসব প্রবাসীদের অনেকেই সম্প্রতি রাঙামাটিতে প্রবেশ করলেও তারা আমাদেরকে তথ্য দিচ্ছেন না এবং হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকছে কিনা সেটিও আমরা নিশ্চিত নই। তাই এসব প্রবাসীদের সুনির্দিষ্ট্য তালিকা প্রণয়নের উদ্যোগ নিয়েছে জেলা প্রশাসন।

এদিকে রাঙামাটি জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ছুফি উল্লাহ জানিয়েছেন, সম্প্রতি ২৪৩জন প্রবাসী রাঙামাটিতে এসেছেন বলে পুলিশের কাছে তথ্য রয়েছে। এসব প্রবাসীদের ব্যাপারে খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে এবং স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনের মাধ্যমে তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইনে রাখতে পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এদিকে জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ জানিয়েছেন, ইতিমধ্যেই রাঙামাটিতে প্রবেশ করা প্রবাসীদের তথ্যাবলি এয়ারপোর্টগুলো থেকে সরকারীভাবে সংগ্রহ করা হয়েছে। সেই তালিকা অনুসারে আজ থেকে চলছে যাচাই-বাছাইয়ের কাজ করছে প্রশাসন। যারাই তথ্য গোপন করে আত্মগোপনে রয়েছে তাদের ব্যাপারে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি থেকে শুরু করে স্থানীয় প্রশাসন তথা উপজেলার ইউএনওদেরকে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করার জন্যে সচেতন নাগরিকদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন রাঙামাটির ডিসি।

অপরদিকে সাধারণ সর্দি কাশি ও ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত রোগিদের জন্য পৃথক চিকিৎসা ব্যবস্থা চালু করেছে রাঙামাটির স্বাস্থ্য বিভাগ। জেলা শহরের একমাত্র জেনারেল হাসপাতালেও পৃথক প্রবেশ পথ, টিকেট কাউন্টার ও আলাদা চিকিৎসালয় প্রস্তুত করে রাখা হয়েছে বলে জানিয়েছেন রাঙামাটির সিভিল সার্জন ডাঃ বিপাশ খীসা। তিনি বলেছেন, নাগরিকদের আতঙ্কিত হওয়ার মতো পরিবেশ রাঙামাটিতে এখনো পর্যন্ত তৈরি হয়নি। তাই আমাদের সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্ঠা ও নিজেদের সচেতনতাবোধই ভয়াবহ এই মহামারির আক্রমণ থেকে রক্ষা করতে পারে।

সিভিল সার্জন জানান, যেকোন প্রকার সর্দি কাশির বা করোনার প্রাদুর্ভাবের উপসর্গসহ রাঙামাটির যেকোন এলাকাতেই যদি কোনো প্রবাসীর আগমন ঘটে সেই লক্ষ্যে স্থানীয়দের কাছ থেকে তথ্য প্রাপ্তি লক্ষে স্বাস্থ্য বিভাগের পক্ষ থেকে একটি হটলাইন নাম্বার চালু করা হয়েছে। ০১৭৩০৩২৪৭৭৫, ০৩৫১৬৩০৩০, ০১৮২৪৯১৯৮৪৯ এবং ৩৩৩ এই নাম্বারগুলোতে যোগাযোগ করে স্বাস্থ্য বিভাগের সেবা গ্রহণের পাশাপাশি প্রবাসীদের ব্যাপারে তথ্য দেওয়ার অনুরোধও জানিয়েছেন রাঙামাটির সিভিল সার্জন ডাঃ বিপাশ খীসা।