কাপ্তাইয়ের চাঞ্চল্যকর মা-মেয়ে খুনের মূল ঘাতক গ্রেফতার

॥ কাপ্তাই প্রতিনিধি ॥

কাপ্তাইয়ে রাইখালী ইউনিয়নের গবাছড়া এলাকায় গত বছরের চাঞ্চল্যকর মা-মেয়ে ব্রাশ ফায়ারে জড়িত মূল ঘাতক মেহলা মারমা ওরফে সানি মারমা (৩৪)’কে খাগড়াছড়ির লক্ষীছড়ি এলাকা ও মো. রবিউল আলম ওরফে বাবলু (২২)’কে রাঙ্গুনিয়া থেকে গ্রেফতার করা হয় বলে চন্দ্রঘোনা থানা ওসি জানান।

চন্দ্রঘোনা থানা অফিসার ইনচার্জ মো. আশ্রাফ উদ্দিন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, গত বছরের ১লা জুলাই দিবাগত রাতে রাইখালীর গবাছড়া এলাকায় শসস্ত্র সন্ত্রাসী কর্তৃক ¤্রাসাং খই মারমা (৬০) ও তার মেয়ে সাংনু মারমা (২৯) কে ব্রাশ ফায়ার করে হত্যা করার ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় গত শনিবার (২১ মার্চ) খাগড়াছড়ির লক্ষীছড়ি এলাকা হতে জোড়া খুনের মূল ঘাতক রাইখালীর নোয়াপাড়ার তিনছড়ি এলাকার মৃত ক্যজাইহলা মারমা ওরফে পুতুল মারমার পুত্র মেহলা মারমা ওরফে সানি মারমা (৩৪)’কে আটক করা হয়। তাকে আটক করতে সহযোগিতা করেন লক্ষীছড়ি থানা পুলিশ ও সেনাবাহিনী টিম।

তিনি আরও জানান, পরে তার স্বীকারোক্তি ও তথ্য মতে জড়িত আসামী মো. রবিউল আলম ও বাবুল (২২)’ও রাঙ্গুনিয়া থানা এলাকা থেকে গ্রেফতার হয়। বাবুল রাঙ্গুনিয়ার পদুয়া ইউনিয়নের ছিফছড়ি পাড়ার পশ্চিম কুরশিয়ার মো. ইব্রাহিমের ছেলে। এ ঘটনায় মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা চন্দ্রঘোনা থানা পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. শফিউল আজম, এসআই মিশন বিশ্বাস, এসআই মো. জাহাঙ্গীর আলম, এ.এস.আই কাউছার হোসেন সঙ্গীয় ফোর্স সহকারে অভিযান পরিচালনা করেন।

আসামীদ্বয় বিজ্ঞ আদালতে ফৌ. কা. বি. ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দি প্রদান করিয়া ঘটনার বিস্তারিত বিবরণ প্রদান করেন বলে জানান, চন্দ্রঘোনা থানার অফির্সার ইনচার্জ আশরাফ উদ্দিন। রবিবার তাকে রাঙামাটি আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে বলেও জানান তিনি।