ব্রেকিং নিউজ

রাঙামাটিবাসীকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে অভ্যস্থ করবে সেনা সদস্যরা

॥ সৌরভ দে ॥

নাগরিকদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার সরকারী সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন, নিত্য প্রয়োজনীয় দ্রব্যমূল্যের উর্দ্বগতি ঠেকানোসহ আগত প্রবাসীদের হোম কোয়ারেন্টাইন নিশ্চিতকরণে পার্বত্য জেলা রাঙামাটি শহরে মঙ্গলবার বিকেল থেকেই সেনাবাহিনীর সদস্যরা মাঠে নেমেছে। রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট উত্তম কুমার দাশ ও সেনাবাহিনীর রাঙামাটি সদর জোনের মেজর হাবিব উল্লাহ খান এর নেতৃত্বে পরিচালিত মোবাইল কোর্ট পুলিশ ও সেনা সদস্যরা রাঙামাটি শহরের প্রত্যেকটি বাজার ঘুরে দেখেন এবং বাজার দর যাচাই করেন।

অভিযানের সময় দোকানীদেরকে প্রাথমিকভাবে সতর্ক করে দিয়ে মোবাইল কোর্ট কর্তৃপক্ষ বাজারে পেয়াঁজের মূল্য সর্বোচ্চ ৫০ টাকা এবং আলুর মূল্য ২০ টাকা কেজি দরে বিক্রির জন্যে নির্দেশনা প্রদান করে।

এছাড়াও প্রত্যেক ক্রেতাকে তার নিত্য প্রয়োজনের বাইরে অতিরিক্ত সদাই বিক্রি না করতে দোকানীদের নিষেধ করে দেন। শহরের যেকোন স্থানেই এখন থেকে প্রকাশ্যে কোনো ধরনের জটলা বা আড্ডা না দেওয়ার জন্যেও মাইকিং করা হয়। এদিকে শহরের ঔষধের দোকানগুলোকে সতর্ক করে দিয়ে সেনা সহায়তায় পরিচালিত মোবাইল কোর্ট কর্তৃপক্ষ জানায় এখন থেকে রোগীর প্রয়োজনে এক পাতার বেশি ঔষধ কারোর কাছে বিক্রি করা যাবেনা।

এসব নির্দেশনা অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে বুধবার থেকে কঠোর ব্যবস্থা নিবে বলেও হুশিয়ার করে দেন মোবাইল কোর্ট পরিচালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট উত্তম কুমার দাশ ও মেজর মোঃ হাবিব উল্লাহ খান। এর আগে মঙ্গলবার দুপুরে রাঙামাটি জেলা প্রশাসনের সম্মেলন কক্ষে সেনাবাহিনী, পুলিশ ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তাদের নিয়ে বৈঠক করেছেন রাঙামাটির জেলা প্রশাসক একেএম মামুনুর রশিদ। সেই বৈঠকের পর বিকেলেই শহরে নামানো হয়েছে সেনাবাহিনীকে। জেলা প্রশাসনের মাধ্যমেই শহরে এখন থেকে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে রাঙামাটির সর্বত্রই সেনাবাহিনীর সদস্যরা টহলে থাকবে এবং নাগরিকদের সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে আইন মানতে অভ্যস্থ করবে দায়িত্বরত সেনা সদস্যরা।