নাইক্ষ্যংছড়ির ইউএনও হোম কোয়ারেন্টাইনে

॥ বান্দরবান প্রতিনিধি ॥

বিদেশ ফেরত নভেল করোনাভাইরাস শনাক্ত এক রোগীর চিকিৎসক ছিলেন স্বামী, এরপর স্বেচ্ছায় ‘হোম কোয়ান্টোইনে’ গেলেন তাঁর স্ত্রী বান্দরবানে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ইউএনও সাদিয়া আফরিন কচি। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ( ইউএইচএফপিও) ডা. আবু জাফর মো. ছলিম এ বিষয়ে নিশ্চিত করেন।

তিনি বলেন, সৌদি আরবে ওমরাh হজ পালন করে সদ্য দেশে ফেরেন কক্সবাজারে ষাটোর্ধ্ব এক নারী। যিনি মঙ্গলবার দুপরে ওই জেলায় নভেল করোনাভাইরাসে প্রথম শনাক্ত রোগী। এই রোগীর চিকিৎসকের দায়িত্বে ছিলেন ইউএনও’র স্বামী ককস কক্সবাজার মেডিকেলের ডা. মো. ইউনুছ।

‘বিদেশ ফেরত ওই নারীর নভেল করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ায় চিকিৎসককেও কক্সবাজার সদর হাসপাতালের ‘আইসোলেশন’ ওয়ার্ডে পাঠানো হয়েছে। এরপর তাঁর স্ত্রী নাইক্ষ্যংছড়ি ইউএনও মঙ্গলবার রাত থেকে স্বেচ্ছায় ‘হোম কোয়ারেন্টাইনে’ গেছেন’।

ডা. আবু জাফর মো. ছলিম জানান, সতর্কতা ও নিজের সুরক্ষার জন্য ‘হোম কোয়ারেন্টাইনে’ যাওয়া। তিনি সুস্থ আছেন।

এর আগে মঙ্গলবার রাত ৮টা থেকে বান্দরবানে লামা, আলীকদম ও নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলায় আংশিক ‘লক ডাউন’ ঘোষণা করে জেলা প্রশাসন। নিদের্শনায় বলা হয়েছে এই তিন উপজেলার সাথে কক্সবাজার জেলার প্রবেশ পথ রয়েছে। কক্সবাজার জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এক রোগী পাওয়ায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। এ সিদ্ধান্তের পর রাত ৮টা থেকে এই তিন উপজেলায় খাদ্যপণ্যবাহী যানবাহন, অ্যাম্বুলেন্স ও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী যানবাহন ছড়া সব ধরণের পরিবহন বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

তবে ‘লক ডাউন’ চলাকালে ওষুধপত্র ও নিত্যপ্রয়োজনীয় দোকান খোলা থাকবে। এর বাইরে সমস্ত দোকানপাট পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বন্ধ থাকবে বলে জানিয়েছেন স্থানীয় প্রশাসন।