ভূতুড়ে শহর রাঙামাটিঃ পোস্ট আছে তবে ল্যাম্প নেই!

॥ মাসুদ পারভেজ নির্জন ॥

রাঙামাটি শহরে দীর্ঘদিন ধরে পৌরসভার প্রায় অনেক সড়কবাতিই(স্ট্রিট লাইট) জ্বলছেনা। কোনটি মিটি মিটি জ্বলে নিভে, কোনটির গ্লাস ভেঙ্গে বেড়িয়ে এসেছে বাতি, কোনটি একেবারেই জ্বলছেনা। শহরের গুরুত্বপূর্ণ স্থান শহীদ মিনার সংলগ্ন সড়কটি যেখানে প্রশাসনের গুরুত্বপূর্ন ব্যক্তি জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার চলাচল করে সেখানেও ঠিক একই অবস্থা।

প্রধান সব সড়কের আশেপাশের দোকানের বাতি, সাইনবোর্ডের আলোতে যতটুকু আলোকিত হয় তা দিয়েই পথচারী ও যানবাহনের চলাচল করতে হয়। দোকান বন্ধ হয়ে গেলেই ভূতুড়ে শহরে পরিনত হয় রাঙামাটি। করোনায় সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিতে নিরাপত্তাবাহিনীর সদস্যরা দিনের চেয়েও রাতে খুব অল্প পরিমাণে থাকে। এমতাবস্থায় রাতের আধাঁরে চুরি, ডাকাতি, মাদকাসক্তদের কর্মকান্ডের আশংকা করছেন এলাকাবাসী।

সরেজমিনে রাঙামাটি শহর ঘুরে দেখা যায়, রাঙামাটি শহরের শহীদ মিনার সংলগ্ন সড়ক, পুরাতন হাসপাতাল থেকে আওয়ামীলীগ অফিস, নিচের রাস্তা, সহ বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ন এলাকায় গুটিকয়েক সড়ক বাতি জ্বললেও বেশিরভাগই জ্বলছেনা।

স্থানীয়রা জানায়, সড়কবাতি না থাকার কারণে রাস্তায় হাঁটা চলা করতে অসুবিধা হয়। বেশি রাতে ঘরে ফিরতে গিয়ে মাদকাসক্তদের খপ্পরে পড়ার আতংক লেগেই থাকে। গুটিকয়েক সড়কবাতি থাকলেও আলো নেই বললেই চলে। একপাশের বিদ্যুৎ খুটিতে সড়ক বাতি থাকলেও অপর পাশের বিদ্যুতের খুটিতে বাতি নেই।

২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর করিম আকবর জানান, ইতোমধ্যেই আমি কোথায় কোথায় সড়কবাতি জ্বলছেনা তার তালিকা করে ফেলেছি, দ্রুতই সব ঠিক করা হবে।

প্যানেল মেয়র জামাল উদ্দিন জানান, করোনা ভাইরাস সচেতনতায় পৌরসভা দিন রাত অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছে। করোনা সচেতনতার জন্য বিষয়টি আমাদের নজরে আসেনি, কোথায় কোথায় সড়কবাতি জ্বলছেনা তালিকা করে খুব দ্রুতই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।