করোনা সন্দেহে কেপিএমে ২ আনসার সদস্যের রক্তের নমুনা সংগ্রহ

॥ কাপ্তাই প্রতিনিধি ॥

কাপ্তাইয়ের চন্দ্রঘোনা ইউনিয়নের কর্ণফুলী পেপার মিলস লি. (কেপিএম) এ কর্মরত দু’জন আনসার সদস্যের শরীরে করোনাভাইরাস সংক্রামন সন্দেহে রক্তের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে বলে জানা যায়। এ ঘটনার জানা জানি হলে এলাকাজুড়ে ছড়িয়ে পড়ে আতঙ্ক। পরে এ ঘটনায় কেপিএমের অভ্যান্তরে কেপিএম লিমিটেডের ম্যানেজার এডমিন সহ আনসার ক্যাম্পটিকে লকডাউন ঘোষণা করে ব্যানার টাঙিয়ে দেওয়ার খবর পাওয়া গিয়েছে।

কেপিএম, স্থানীয় ও পুলিশ সুত্রে জানা যায়, কর্ণফুলী পেপার মিলস লি. এর কর্মরত জেলা আনসারের সিপাহী সঞ্জয় দাশ (২৫) ও সিপাহী মো. আব্দুল হামিদ (২৫) কে নোবেল করোনাভাইরাস রোগে আক্রান্ত সন্দেহে মঙ্গলবার (৭ এপ্রিল) রক্তের নমুনা সংগ্রহ করে রাঙামাটি প্রেরণ করা হয়েছে।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহম্মেদ রাসেল। জানা যায়, কেপিএম লিমিটেডের ম্যানেজার এডমিন মাজহারুল ইসলাম ও পুলিশ কেপিএম এর অভ্যন্তরে আনসার ক্যাম্পের সকল সদস্য সহ (পিসি মো. মোস্তফা সহ ১০ আনসার সদস্য) আনসার ক্যাম্পটিকে ব্যানার লাগিয়ে লকডাউন করে রাখা হয়েছে। এদিকে উক্ত আনসার সদস্যদ্বয় এরমধ্যে গত পাঁচ দিন পূর্ব হতে প্রথমে সঞ্জয় দাসের সর্দি কাশি জ্বর দেখা দেয় এবং পরবর্তীতে মো. আব্দুল হামিদের লক্ষণ দেখা দেয় বলে জানা যায়।

এদিকে কর্ণফুলী পেপার মিলস লি. এর সিবিএ সভাপতি আব্দুল রাজ্জাক ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, এত কিছু হয়ে যাচ্ছে। সারা দেশের সকল মিলস কারখানা বন্ধ অথচ কেপিএম চলমান রয়েছে এখনও।

কাপ্তাই উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আশ্রাফ আহম্মেদ রাসেল এই প্রতিনিধির মাধ্যমে জনসাধারণের উদ্দেশ্যে বলেন, অনুগ্রহ করে বাড়িতে থাকুন। আমাদের সকলকে নিরাপদে রাখতে আপনার বাড়িতে থাকা জরুরী। এ রোগ একটি ছোয়াছে রোগ। কার কাছে এ রোগের সংক্রামন তা দূর থেকে বুঝা মশকিল। তাই অনুগ্রহ করে বাড়ি থেকে বের হবেননা। আর যদি বিনা প্রয়োজনে বাড়ি ছেড়ে বের হন তবে আপনাদের বিরুদ্ধে আইন অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে বাধ্য হবো।

চন্দ্রঘোনা ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ারুল ইসলাম চৌধুরী বেবি বলেন, অনুগ্রহ করে সকলে বাড়িতে থাকুন।