ব্রেকিং নিউজ

করোনা দুর্যোগে সবচেয়ে বড় বিপাকে রাঙামাটির মধ্যবিত্ত শ্রেণী

॥ আবদুল নাঈম মোহন ॥

মহামারি করোনা ভাইরাসে থমকে গেছে গোটা বিশ্ব। এর প্রভাব ঠেকাতে বিশ্বের অনেক দেশে শুরু হয়েছে লকডাউন। বাংলাদেশেও সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা তৈরি হয়েছে, চলছে অঘোষিত লকডাউন পরিস্থিতি। মহামারি করোনা ভাইরাসে বিস্তার রোধে গত ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছিল যা আবার বাড়ানো হয়েছে। যার ফলে বন্ধ রয়েছে স্কুল-কলেজ, অফিস-আদালত, ব্যবসায় প্রতিষ্ঠান ও শপিংমলসহ সকল ধরনের যানবাহন। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় মুদি ও কাচাবাজার ও পণ্যবাহী যান চলাচল করতে পারছে। তবে গত রবিার সন্ধ্যায় থেকে রাঙামাটি জেলার প্রশাসন কঠোর অবস্থান গ্রহণ করেছে। বিকাল পাঁচ টার পর থেকে ফার্মেসী ছাড়া সকল মুদি , কাচা বাজার ও মানুষের চলাফেরা বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছেন।

আর এদিকে উচ্চবিত্তরা বিলাসিতায় ছুটি কাটাচ্ছেন আর অন্যদিকে নিম্মবিত্ত পরিবারের পাশে এসে দাড়িয়েছে সরকারি-বেসরকারি, স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন, রাজনৈতিক ব্যাক্তি ও উচ্চবিত্তরা। তবে চরম সমস্যায় থাকলেও কাউকে কিছু বলতে পারছে না মধ্যবিত্তরা। সেজন্য লোক লজ্জার ভয়ে চাপা কান্না কাঁদছেন তারা।

নাম প্রকাশের অনিচ্ছুক রাঙামাটি শহরের কলেজ গেইটের একটি দোকানের ম্যানেজার জানান, আর্থিকভাবে পরিবার নিয়ে অনেক ভালোই ছিলাম, বাবা-মা, ভাই-বোন নিয়ে সংসারটা ভালোভাবে চলে যেতে, কিন্তু মহামারি করোনার কারণে ব্যবসা বন্ধ, যার কারণে অনেকটা কষ্টে দিন কাটছে, যা লোক লজ্জায় কাউকে কিছু বলতে পারছি না,  আর আমার কোন সঞ্চয়ও নেই।

আরেক ব্যবসায়ী জানান, গত কয়েক বছর ব্যবসা করলেও এমন সংকটে কখনোই পড়তে হয়নি। ১১ দিন ধরে দোকান বন্ধ। হাতে কিছু টাকা ছিল তা দিয়ে কিছু বাজার করেছেন। করোনা পরিস্থিতির কারণে কঠিন অনিশ্চয়তায় পড়ে অন্ধকার দেখছেন চোখেমুখে। বাসা ভাড়া, সংসার খরচ এসব কিভাবে জুটবে সেই চিন্তায় ঘুম আসে না তার। স্ত্রী ও সন্তানদের মুখের দিকে তাকিয়ে ভেতরে ভেতরেই গুমরে কাঁদছেন তিনি।

কলেজ গেইট গাউছিয়া মার্কেটের একজন কসমেটিক্স ব্যবসায়ী বলেন, উচ্চবিত্তদের তো আর্থিক সমস্যা না হওয়ায় স্বাচ্ছন্দে জীবনযাপন করছেন। নিম্নবিত্তের লোকজন তো সরকারি ত্রাণ পাচ্ছে, বেসরকারি সহায়তা পাচ্ছে, বিভিন্ন সংগঠন দলীয়ভাবে পাচ্ছেন, কিন্তু মধ্যবিত্তের কী হবে….? তার ঘরে খাবার শেষ হয়ে আসছে। তারা এখন অল্প অল্প করে খাচ্ছেন।

তবে রাঙামাটি শহরে ফেসবুকেও অনেকে তুলে ধরছেন মধ্যবিত্ত পরিবারে কথা। একজন লিখেছেন, সবাই আমরা ব্যস্ত নি¤œ আয়ের মানুষদের নিয়ে। মধ্যবিত্তদের খবর কি কারো কাছে আছে…..? এসময় মধ্যবিত্তদের খবর না রাখলে না খেয়ে মারা যেতে পারে হাজারও মধ্যবিত্ত পরিবার এমনটা মনে করছেন তিনি। খবর নিয়েন বাসায় বাজার সদায় আছে নাকি। মুখ চেপে না খেয়ে দিন পার করছে মধ্যবিত্তরাও।

এদিকে মঙ্গলবার বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দিয়েছে, মধ্যবিত্ত পরিবার গুলোর নামের তালিকা করার জন্য।