রাঙ্গামাটিতে চলছে ন্যাড়া হওয়ার মহোৎসব!

॥ নিজস্ব প্রতিবেদক ॥

সারা দেশের ন্যায় রাঙামাটিতেও করোনা সংক্রমণ রোধে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। একইসঙ্গে অবস্থান করতে বলা হয়েছে বাসায়। এই সুযোগে রাঙামাটিতে ন্যাড়া হওয়ার হিড়িক লেগেছে তরুণদের মধ্যে। মাথার চুল ফেলে কেউ নীরবে বাসায় অবস্থান করছেন আবার অনেকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিজের ন্যাড়া মাথার ছবি পোস্ট করছেন। করোনা ভাইরাস নিয়ে আতঙ্কের এই দিনগুলোর মধ্যেও এমন ঘটনা মানুষের মধ্যে ব্যাপক হাস্যরসাত্মকের খোরাক যোগাচ্ছে।

সম্প্রতি মাথা ন্যাড়া করেছেন ও ফেসবুকে ছবি প্রকাশ করেছেন এমন কয়েকজনের সঙ্গে কথা বললে তারা জানিয়েছেন, করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে এখন সবাইকে গৃহবন্দী থাকতে হচ্ছে। কতদিন পরে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হবে, স্বাভাবিক কর্মজীবনে ফিরবো, তার নিশ্চয়তা নেই। তাই এই সুযোগে মাথা ন্যাড়া করে নিচ্ছি।

কারণ হিসেবে তারা জানান, যেহেতু বের হতে হচ্ছে না তাই সামনা-সামনি কোনো ব্যাঙ্গাত্মক মন্তব্য শোনার ও ক্রাশের সামনে অপদস্থ হওয়ারও কোন আশঙ্কা নেই। তা ছাড়া সরকারি নির্দেশনায় এখন অন্যান্যপ্রতিষ্ঠানের মতো সেলুনগুলোও বন্ধ। দীর্ঘদিন সেলুনে যেতে না পারায় মাথায় চুলবেড়ে যাচ্ছে। গরমের এই সময়ে মাথা চুলকাচ্ছে। তাই বাড়িতে বসেই মাথা ন্যাড়া করে ফেলছেন তারা। চুল গজাতে গজাতে পরিস্থিতিও স্বাভাবিক হবে বলে ধারণা তাদের।

এদিকে ন্যাড়া হওয়া নিয়ে উৎসুক একটু দল সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে “বালা সিন্ডিকেট” নামে একটি গ্রুপও খুলে ফেলেছে। গ্রুপে নিজের ন্যাড়া মাথার ছবি আপলোড করে নিজেকে গ্রুপের গর্বিত সদস্য দাবিসহ ন্যাড়া হওয়ার বিভিন্ন উপকারিতাও তুলে ধরছেন অনেকে।

বিষয়টিকে রসিকতা হিসেবেই নিচ্ছেন সচেতন মহল। তাদের মতে, শুধু রাঙ্গামাটিই নয় দেশের বিভিন্ন জেলায় এই ট্রেন্ড চলছে। রাঙ্গামাটিতেও তারই হাওয়া লেগেছে। সারাদিন রাস্তায় দাপিয়ে বেড়ানো তরুণরা হঠাত ঘরবন্দী হয়ে এইধরনের কর্মকান্ডে নিজেদের ব্যস্ত রাখছে। রাখুক না…… ক্ষতি কি?