ব্রেকিং নিউজ

১ মিনিটের বাজারঃ কৃষক ও দুঃস্থ উভয়ের মুখে হাসি ফোটাল সেনাবাহিনী

প্রতিবন্ধীদের বাজার করতে সহায়তা করছে সেনা সদস্যরা

॥ শহিদুল ইসলাম হৃদয় ॥

করোনা দূর্যোগের দরুণ অঘোষিত লকডাউনে বিপর্যস্ত হয়ে পড়া রাঙ্গামাটির দুস্থ ও নিন্ম আয়ের মানুষের জন্য সেনাবাহিনীর এক অনন্য উদ্যোগ “এক মিনিটের বাজার”। শুক্রবার সকালে রাঙামাটি মারী স্টেডিয়ামে ২৪ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি এস এম মতিউর রহমানের নির্দেশে রাঙামাটি রিজিয়ন কর্তৃক এই আয়োজন করা হয়।

জীবাণুনাশক প্রবেশপথ, হাত ধোয়ার সুব্যবস্থা সম্বলিত এই বাজারের মধ্যে ছিলো চাল, আলু , ঢেঁড়শ, শষা , বরবটি , কচুর লতি, মিষ্টি কুমড়া , চিচিংগা ও কাঁচামরিচ। বাজার বলা হলেও এই নয় প্রকার দ্রব্য এসব অসহায় মানুষের মাঝে বিনা মূল্যেই প্রদান করা হয়েছে। সরজমিনে জরিপ করে অসহায়, প্রতিবন্ধী ও দুঃস্থ ব্যক্তিদের তালিকা তৈরী করে প্রত্যেকের কাছে একটি করে টোকেন প্রদান করা হয় আর এই টোকেন দেখিয়েই প্রতিটি পরিবার এক মিনিটের বাজার থেকে সংগ্রহ করেন তাদের প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী।

এই বাজারের উদ্দেশ্য ব্যাখ্যা করতে গিয়ে প্রধান অতিথির ব্রিগেডিয়ার জেনারেল ইফতেকুর রহমান (PSC) বলেন, পার্বত্য অঞ্চলে সন্ত্রাস দমনের পাশাপাশি এই বৈশ্বিক মহামারী মোকাবেলায় জন প্রশাসনের সাথে সেনাবাহিনীও মাঠে আছে। এই মহামারীতে জন জীবন এবং জীবিকা বাঁধাগ্রস্ত হচ্ছে। তাই আমরা ২৪ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি স্যারের নির্দেশনায় এবং রাঙ্গামাটি রিজিয়নের তত্ত্বাবধানে এই “এক মিনিটের বাজার” এর উদ্যোগ নিয়েছি।

বাজারের প্রবেশপথে জীবাণুমুক্ত হওয়ার যাবতীয় ব্যবস্থা

তিনি বলেন, যদিও এটিকে বাজার বলা হচ্ছে তবে এটি বাজার নয়। এইখানে রাখা প্রতিটি জিনিস সম্পূর্ণ বিনামূল্যে দুস্থরা নিতে পারবে। আমাদের উদ্দেশ্য মূলত দুটি। আমরা কৃষকের ক্ষেত থেকে সরাসরি এই সবজিগুলো কিনে নিয়েছি। এতে করে কৃষক তার ন্যায্যমূল্য পাচ্ছে অন্যদিকে দুঃস্থরা বিনামূল্যে এসব জিনিস পাচ্ছে।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন, সদর জোন কমান্ডার লেঃ কর্নেল মোঃ রফিকুল ইসলাম, BM-৩০৫ মেজর মোঃ মাহাবুবুর রহমান।