পৌর সদরে জলাবদ্ধতা নিরসনে ড্রেনেজ নির্মাণ চলমান

॥ হাটহাজারী প্রতিনিধি ॥

চট্টগ্রামের হাটহাজারী পৌর এলাকায় জলাবদ্ধতা নিরসনে ব্যাপক পরিকল্পনা নিয়েছে পৌর কর্তৃপক্ষ। ময়লা-আবর্জনার স্তুপ থেকে বেরিয়ে আসছে নতুন এক পরিচ্ছন্ন ও ঝকঝকে শহর। রাস্তাঘাটের উন্নয়ন, ড্রেনেজ ব্যবস্থার মাধ্যমে জলাবদ্ধতা পরিস্থিতির উন্নয়ন অনেকটা এগিয়ে নিয়েছে পৌর প্রশাসক রুহুল আমিন।

পৌর কর্তৃপক্ষ পরিকল্পনা অনুযায়ী কিছু বাস্তবায়ন করে যাচ্ছেন নতুন এই ড্রেনেজটি সম্পুর্ণ হলে পৌর সদরে জলাবদ্ধতা থাকবে না। প্রকল্পইটি হলে আলোর মুখ দেখবে পৌরবাসী। গত দেড় বছর থেকে পৌর সদরের মরা ছড়া(খাল)টি অবৈধ স্থাপনা ভেঙে নতুন করে বড় ড্রেনেজ নির্মাণ করছে পৌর কর্তৃপক্ষ। প্রবীণ কয়েকজন বাসিন্দার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পৌর এলাকার বিভিন্ন পাড়ায় মিলে প্রায় শতাধিক পানিনিষ্কাশনের নালা (ড্রেন) রয়েছে। এসব নালা দিয়ে শহরের পানি মরা ছড়াটিতে পড়ে। এই ছড়াটি এত বছর প্রভাবশালীরা ছড়ার বিভিন্ন স্থানে দখল করে নির্মাণ করা করেন অবৈধ স্থাপনা। এ সব অবৈধ স্থাপনার কারনে ছড়ায় ময়লা আটকে পানি চলাচলের প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করছিল। বর্তমান গত দেড় বছর থেকে পৌর কর্তৃপক্ষ ছড়াটি প্রশস্ত করে নির্মাণ শুরু করে নতুন ড্রেনেজ সেটি প্রায় শেষ পর্যায়ে কাজ চলমান রয়েছে ড্রেনেজটি শেষ হলে পৌর সদরে জলাবদ্ধতা একেবারেই থাকবে না।

পৌর সদরের ফটিকা বাসিন্দার আবু তৈয়ব জানায়, বাসা বাড়ির বেশি ভাগ ময়লা রাতের অন্ধকারে ছড়ার মধ্যে ফেলার কারনে ময়লা-আবর্জনা জমে ছড়ায় পানিপ্রবাহ বন্ধ থাকে। নতুন ড্রেনেজ নির্মাণ করার পরেও বসতীরা সচেতন না হয়েও ছড়ায় ময়লা ফেলছে ।পৌর কর্তৃপক্ষ বর্তমান ছড়াটিতে নতুন ড্রেনেজটি নির্মাণের ফলে আগামীতে পৌর সদরে জলাবদ্ধতা থাকবে না।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে হাটহাজারী পৌর প্রশাসক মোহাম্মদ রুহুল আমিন বলেন,পৌর এলাকার পরিবেশ সুন্দর করতে হলে প্রথমে পানি নিস্কাশনের ব্যবস্থা করতে হবে তা যদি না হয় কখনও জলাবদ্ধতা বন্ধ করা যাবে না। তিনি আরো বলেন,পৌরবাসীর সহযোগিতায় ড্রেনেজ এর কাজ চলছে সবাই যাতে সহযোগিতা করেন তাহলে ড্রেনেজ সম্পুর্ণ কাজ দ্রুত শেষ করতে পারব। ড্রেনেজটি পৌর সদরের ফটিকা শাহজালাল পাড়া হয়ে মোহাম্মদপুর পর্যন্ত ড্রেনেজ এর সম্পুর্ণ কাজ শেষ করার জন্য পৌরবাসী সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।