ব্রেকিং নিউজ

মাদ্রাসা মসজিদের অযুখানা ও জেয়ারতখানা ভাংচুর ঘটনায় লিখিত অভিযোগ

॥ মোহাম্মদ হোসেন ॥

চট্টগ্রামের হাটহাজারীর উত্তর মাদার্শা একটি মসজিদ এর অযুখানা ও জেয়ারতখানা ভাংচুর অভিযোগে পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় মোঃ জসিম উদ্দিন বাদী হয়ে উপজেলা প্রশাসনের নিকট একটি অভিযোগ দায়ের করেন। একই সময় বিষয়টি হাটহাজারী মডেল থানা,র‌্যাব-৭ হাটহাজারী কে অনুলিপি দিয়ে অবহিত করেন।

সরেজমিন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে দেখা যায়,উত্তর মাদার্শা শামীর মোহাম্মদ বাড়ির একটি মসজিদের অজুখানা ভাংচুর করেছে প্রতিপক্ষ একই বাড়ির মৃত জালাল আহম্মদের পুত্র মোঃ রোকন(৩৫) ও মৃত মাহাবুল আলমের পুত্র মোঃ এমরানের(২৭)। অভিযুক্তরা অজুহানাস্থল তাদের জায়গা দাবী করে জায়গাটি অজুহানা ভাংচুরের ঘটনা গণমাধ্যমকর্মীদের কাছে স্বীকার করেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, অভিযুক্তদ্বয় বিভিন্ন অপকর্মের কারণে বাড়ির মসজিদের কমিটিতে অন্তর্ভুক্ত হতে না পারায় মসজিদ সংলগ্ন কবরস্থানের জায়গায় নিজেদের দাবী করে মুসল্লিদের অজুহানাটি ভাংচুর করেন।

বর্তমান মসজিদ কমিটি ও এলাকাবাসী ভাংচুরের প্রতিবাদ জানিয়ে তাদের কাছে জায়গার কাগজপত্র উপস্থাপিতের অনুরোধ করলে তারা তা দেখাতে পারেনি। বিষয়টি নিয়ে বেশ কয়েকবার এলাকায় বৈঠকে সির্দ্ধান্ত নেয়া হলেও প্রতিপক্ষরা বৈঠক বসতে অনীহা প্রকাশ করেন বলে বাদীর লিখিত অভিযোগে জানা গেছে।

গত বৃহস্প্রতিবার(২জুলাই) রাতে অভিযুক্ত ও অজ্ঞাত ৩/৪ জন মসজিদ সংলগ্ন কবরস্থানের সম্পত্তিতে মুসল্লিদের অযুখানা ও জেয়ারতখানা ভাংচুর করে করে আর্থিক ক্ষতিপুরণ করেছেন। এ সময় স্থানীয় কয়েকজন বাধা দিতে গেলে তাদের মারধরের হুমকি প্রদান করে।

হাটহাজারী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রুহুল আমিন বলেন, বিষয়টি দু’পক্ষের লোকজনকে নিয়ে চেয়ারম্যান সমাধান করবে। আমি বাদীর লিখিত অভিযোগ পেয়েছি চেয়ারম্যানকে বিষয়টি জানিয়ে দিয়েছি।তিনি স্থানীয় মেম্বার এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিদের নিয়ে উভয়পক্ষকে নিয়ে একটা মিমাংসা করা হলে দু’পক্ষের জন্য ভালো হবে।