ব্রেকিং নিউজ

সরকারি বরাদ্দ হরিলুটের অভিযোগ চেয়ারম্যান রাসেলের বিরুদ্ধে; স্বাক্ষ্য দিলেন তাঁর পিতাও!

আবারো আলোচনায় চেয়ারম্যান রাসেলঃ পিতাও দিলেন পুত্রের বিরুদ্ধে সরকারি বরাদ্দ হরিলুটের অভিযোগ

॥ মাসুদ পারভেজ নির্জন ॥

বাঘাইছড়ি উপজেলার ৩৭ নং আমতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাসেল চৌধুরীর বিরুদ্ধে গুচ্ছগ্রামের সরকারী বরাদ্দকৃত খাদ্য শস্য বিতরনে অনিয়ম ও মৃত ব্যাক্তির ওয়ারিশগণের নাম পরিবর্তনে বিপুল পরিমান অর্থ গ্রহনের অভিযোগ উঠেছে। বুধবার সকালে বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য গুচ্ছগ্রামের ৭৫ বাসিন্দা গণস্বাক্ষর সম্বলিত লিখিত অভিযোগ জানান।

অভিযোগে জানানো হয়, গুচ্ছগ্রামে প্রতি তিন মাসে প্রতি পরিবারের জন্য ২৭৩ কেজি চাউল/গম বরাদ্দ দেওয়া হলেও রাসেল ১৮৪ কেজি বিতরন করেন।বাকি ৮৯ কেজি খাদ্য শস্য বরাদ্দে কম বিতরন করা হয়। প্রতি বরাদ্দে (৮৯ X ৭৫) =৬৬৭৫ কেজি চাউল/গম আত্মসাৎ করা হয়।এছাড়াও গত এপ্রিল, মে, জুন তিন মাসের বরাদ্দকৃত চাউল/গম কাউকে না জানিয়ে বিক্রি ও করে দেন। অবশেষে জানাজানি হলে নামে মাত্র টাকা বিতরণ করে সিংহভাগ তিনি নিজে আত্মসাৎ করেন।

অভিযোগে আরো জানানো হয়, গুচ্ছগ্রামের যে কার্ডধারী পরিবার প্রধানের মৃত্যু হয়েছে সেই মৃত ব্যাক্তির কার্ড পরিবর্তন করতে ১০,০০০-১২,০০০ অফিস খরচের নামে নেওয়া হয়।

লিখিত অভিযোগে আরো জানানো হয়, পাচঁ-সাতটি পরিবারকে নামে মাত্র ১০০ কেজি চাউল বিতরন করা হয়। এছাড়াও প্রতিবাদ করিলে হুমকি ধামকি নিত্যদিনের ব্যাপার। রাসেল চেয়ারম্যান অশ্রাব্য ভাষায় হুমকি দিয়ে বলেন, গুচ্ছগ্রামের ৭৫ পরিবারের সকলে একত্রেও তার কিছু করতে পারবেনা এবং অভিযোগকারীর কার্ড বাতিল করে দিবেন।

গুচ্ছগ্রামের সদস্যরা প্রতিবেদককে জানান, রাসেল ২০১৭ সালে তৎকালীন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সভাপতি থাকা অবস্থায় অতিষ্ঠ ছিলেন এলাকাবাসীরা। চেয়ারম্যান নির্বাচিত হওয়ার পর থেকে অত্যাচারের মাত্রা আরো ভয়ংকর আকার ধারন করে।পুরো এলাকাবাসীর জন্য রাসেল হয়ে উঠেন মূর্তিমান আতঙ্ক। তার বিরুদ্ধে অত্যাচার, নারী নির্যাতন, ক্ষমতার অপব্যবহার, মিথ্যা মামলায় জিম্মি, মাদক, চাঁদাবাজিরও অভিযোগ করেন গুচ্ছগ্রামবাসীরা। তারা আরোও জানান, রাসেল কে ২০১৭ সালের ১৯ অক্টোবর দলীয় শৃংখলা ভঙ্গের দায়ে সাময়িকভাবে বহিস্কার করা হয়।এমনকি যুবলীগ থাকাকালীন ও বহিস্কার করা হয়েছিল।

গণস্বাক্ষরে স্বাক্ষর করেছেন খোদ রাসেল চৈাধুরীর পিতা সুলতান আহমেদ। তিনি প্রতিবেদককে মুঠোফোনে জানান, ৩ মাসে ২৭৩ কেজি গম বা চাউল/ গম বরাদ্দ আসে গুচ্ছগ্রামে ।আগের চেয়ারম্যানরা সঠিক পরিমান দিতো।আমার ছেলে রাসেল যখন গুচ্ছগ্রামের দায়িত্ব নেওয়ার পর গুচ্ছগ্রামবাসীরা আমার কাছে আপত্তি নিয়ে আসতে থাকে যে রাসেল ১৮৪ কেজি বিতরন করে।এমনকি আমি নিজেই দেখেছি ৩০ কেজির ৬ টি বস্তা অথাৎ ১৮০ কেজি চাউল দিতে।

বাঘাইছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার আহসান হাবিব জিতু জানান, বাঘাইছড়ি উপজেলার ৩৭ নং আমতলী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান রাসেল চৌধুরীর বিরুদ্ধে গুচ্ছগ্রামের সরকারী বরাদ্দকৃত খাদ্য শস্য বিতরনে অনিয়ম ও মৃত ব্যাক্তির ওয়ারিশগনের নাম পরিবর্তনে বিপুল পরিমান অর্থ গ্রহনের লিখিত অভিযোগ পেয়েছি।বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

এ বিষয়ে রাসেল চৌধুরীর কাছে জানতে চাইলে তিনি প্রতিবেদককে মুঠোফোনে জানান, স্বার্থের লোভে এই অভিযোগ করা হয়েছে। এগুলো সব মিথ্যা ও বানোয়াট।