ব্রেকিং নিউজ

করোনাপঞ্জীঃ সর্বমোট আক্রান্ত ৫৯০, সুস্থ ৩৯১, মৃত্যু ৯

সিএইচটি টাইমস ডেস্ক

নভেল করোনাভাইরাস। চীনের উহানে প্রথমে শনাক্ত হওয়া এ ভাইরাস ছড়িয়ে পড়েছে বিশ্বের প্রায় সব দেশ ও অঞ্চলে। মহামারী ঘোষিত এই ভাইরাসে প্রতিনিয়ত মৃতের সংখ্যা বাড়ছে, বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যাও। ৬ মে রাঙ্গামাটিতে প্রথম করোনাভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর এখানেও বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। রাঙ্গামাটিতে করোনা হানা দেওয়ার ২ মাস ৭ দিনে আক্রান্তের সংখ্যা ঠেকে ৪৫১তে।

২৫ জুলাই দুপুর পর্যন্ত রাঙামাটি সিভিল সার্জন অফিস হতে প্রাপ্ত তথ্যে জানা যায়, রাঙামাটির সবকটি উপজেলাতে করোনা পজিটিভ রোগী শনাক্ত হয়েছেন যার মধ্যে রাঙামাটি সদরেই আছেন ৩৭৯ জন। অন্য উপজেলাগুলোর মধ্যে লংগদুতে ১০ জন, নানিয়ারচরে ৯ জন, কাউখালীতে ৩০ জন, কাপ্তাইয়ে ৯৭ জন, রাজস্থলীতে ৯ জন, বিলাইছড়িতে ১৩ জন, জুরাছড়িতে ২৩ জন, বরকলে ৫ জন ও বাঘাইছড়িতে ১৫ জন শনাক্ত হয়েছে।

শনিবার, ২৫ জুলাই

এইদিন সকালে সিভাসু হতে আসা ৪৪টি রিপোর্টে নতুন ১৪ জন করোনা পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

১৪ জনের মধ্যে সদর উপজেলা থেকে ১০ জন, কাপ্তাই থেকে ৩ জন ও নানিয়ারচর থেকে ১ জন আছে বলে নিশ্চিত হওয়া যায়। এ নিয়ে রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৫৯০ জন।

বৃহস্পতিবার, ২৩ জুলাই 

এইদিন সকালে সিভাসু হতে আসা ৭১টি রিপোর্টে নতুন ৩৩ জন করোনা পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

৩৩ জনের মধ্যে সদর থেকে ২৯ জন, বরকল থেকে ১ জন, কাপ্তাই থেকে ২ জন ও নানিয়ারচর থেকে ১ জন আছে বলে নিশ্চিত হওয়া যায়। এ নিয়ে রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৫৭৬ জন।

পাশাপাশি কাউখালি থেকে নতুন করে ৪ জন, লংগদু থেকে ১ জন ও রাজস্থলী থেকে ১ জনসহ মোট ৬ জনের সুস্থতার তথ্য নিশ্চিত করে সিভিল সার্জন অফিস। এতে করে রাঙ্গামাটিতে সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৯১ জন।

এইদিন ২১ জুলাই করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা যাওয়া টিএন্ডটি এলাকার বাসিন্দা এনামুল হকের রিপোর্ট করোনা পজেটিভ আসে। এতে করে জেলায় করোনায় মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৯ জনে।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ৩৩ জন ও আইসোলেশনে ছিলেন ১৪ জন।

মঙ্গলবার, ২১ জুলাই 

এইদিন সকালে সিভাসু হতে আসা ৮০টি রিপোর্টে নতুন ৩২ জন করোনা পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

৩২ জনের মধ্যে সদর থেকে ২৬ জন, জুরাছড়ি থেকে ৩ জন, কাউখালী থেকে ১ জন, কাপ্তাই থেকে ১ জন ও নানিয়ারচর থেকে ১ জন আছে বলে নিশ্চিত হওয়া যায়। এ নিয়ে রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৫৪৩ জন।

পাশাপাশি সদর থেকে নতুন করে ১০ জন, কাপ্তাই থেকে ৬ জন, বাঘাইছড়ি থেকে ১ জন ও লংগদু থেকে ১ জনসহ মোট ১৮ জনের সুস্থতার তথ্য নিশ্চিত করে সিভিল সার্জন অফিস। এতে করে রাঙ্গামাটিতে সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৮৫ জন।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ৫১ জন, আইসোলেশনে ছিলেন ৯ জন এবং মৃতের সংখ্যা ৮ জন।

রবিবার, ১৯ জুলাই 

এইদিন সকালে সিভাসু হতে আসা ৩৯টি রিপোর্টে নতুন ১৬ জন করোনা পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

১৬ জনের মধ্যে সদর থেকে ১৩ জন ও নানিয়ারচর থেকে ৩ জনের খবর নিশ্চিত হওয়া যায়। এ নিয়ে রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৫১১ জন।

পাশাপাশি সদর হতে ১৫ জন, কাপ্তাই হতে ১ জন ও বিলাইছড়ি হতে ৩ জনসহ মোট ১৯ জনের সুস্থতার তথ্য নিশ্চিত করে সিভিল সার্জন অফিস। এতে করে রাঙ্গামাটিতে সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৬৭ জন।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ১৬৫ জন, আইসোলেশনে ছিলেন ৯ জন এবং মৃতের সংখ্যা ৮ জন।

শুক্রবার, ১৭ জুলাই 

এইদিন রাঙামাটি সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শহিদুজ্জামান মহসিন রোমানসহ মোট ২৬ করোনা পজেটিভ রোগী শনাক্ত হয়। সকালে সিভাসু হতে আসা রিপোর্টে নতুন এই ২৬ জন করোনা পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

২৬ জনের মধ্যে সদর থেকে ২০ জন, কাপ্তাই থেকে ২ জন, জুরাছড়ি থেকে ২ জন, বরকল থেকে ১ জন ও রাজস্থলী থেকে ১ জন আছে বলে নিশ্চিত করেছেন তিনি। এ নিয়ে রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৯৫ জন।

এছাড়াও ১৪ জুলাই করোনা উপসর্গ নিয়ে রাঙামাটি শহরের রিজার্ভ বাজার এলাকায় মারা যাওয়া শেফালী সেনের (৮০) করোনা রিপোর্ট পজেটিভ আসে এইদিন। এতে করে জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৮ জন।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ১৮০ জন, আইসোলেশনে ছিলেন ৯ জন এবং আরোগ্য লাভ করেছেন ৩৪৮ জন।

বৃহস্পতিবার, ১৬ জুলাই

এইদিন রাঙামাটি সদর থেকে নতুন করে ৩ জন, কাপ্তাই থেকে ৫ জনসহ মোট ৮ জন করোনা জয়ের মাধ্যমে রাঙামাটিতে সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৪৮ জনে।

বুধবার, ১৫ জুলাই 

এইদিন সকালে রাঙামাটিতে সিভাসু হতে আসা ৫৪ টি রিপোর্টে নতুন ১৮ জন করোনা পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

১৮ জনের মধ্যে সদর হতে ১৩ জন, কাপ্তাই হতে ১ জন, নানিয়ারচর হতে ১ জন, কাউখালী হতে ২ জন ও জুরাছড়ি হতে ১ জন আছে বলে নিশ্চিত করেন করোনা ফোকাল পার্সন ডা. মোস্তফা কামাল। এ নিয়ে রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৪৬৯ জন।

পাশাপাশি রাঙামাটি সদর থেকে ৪ জন, কাপ্তাই থেকে ৮ জন, জুরাছড়ি থেকে ৯ জন, কাউখালী থেকে ২ জন, লংগদু থেকে ১ জন, বাঘাইছড়ি থেকে ২ জন ও বিলাইছড়ি থেকে ১ জনসহ মোট ২৬ জন নতুন করোনা জয় করেন। এতে করে রাঙামাটিতে সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা দাঁড়ায় ৩৩৯ জনে।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ১৭৬ জন, আইসোলেশনে ছিলেন ১০ জন এবং করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ৭ জন।

সোমবার, ১৩ জুলাই

এইদিন রাঙামাটিতে আরো ৯ জন করোনা পজেটিভ রোগী হিসেবে শনাক্ত হয়। সকালে বিআইটিআইডি হতে আসা ২২টি রিপোর্টে এই নতুন ৯ জন পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

এইদিন রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৫১ জন।

একইদিন রাঙামাটি হতে রেকর্ড সংখ্যক করোনা রোগী সুস্থ হয়। একইদিন রাঙামাটি সদর থেকে নতুন করে ২০ জন, বাঘাইছড়ি থেকে ৮ জন, রাজস্থলী থেকে ২ জন, লংগদু থেকে ১ জন, বরকল থেকে ১ জনসহ মোট ৩২ জনের করোনা জয়ের মাধ্যমে রাঙামাটিতে সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা দাঁড়ায় ৩১৩ জনে।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ১৭১ জন, আইসোলেশনে ছিলেন ১০ জন এবং করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ৭ জন।

রবিবার, ১২ জুলাই

এইদিন রাঙামাটি সদর উপজেলা থেকে নতুন করে ৯ জন ও কাপ্তাই উপজেলা থেকে নতুন করে ৯ জন করোনা জয়ের মাধ্যমে রাঙামাটিতে সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা দাঁড়ায় ২৮১ জনে।

শনিবার, ১১ জুলাই

এইদিন রাঙামাটিতে আরো ২৪ জন করোনা পজেটিভ রোগী হিসেবে শনাক্ত হয়। সকালে বিআইটিআইডি ও সিভাসু হতে আসা রিপোর্টে এই নতুন ২৪ জন পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

২৪ জনের মধ্যে সদর হতে ১০ জন, কাপ্তাই হতে ৪ জন, বরকল হতে ১ জন, লংগদু হতে ১ জন, কাউখালী হতে ২ জন, জুরাছড়ি হতে ২ জন, বিলাইছড়ি হতে ২ জন ও রাজস্থলী হতে ২ জন আছে বলে নিশ্চিত করেন ডা. মোস্তফা কামাল।

এইদিন রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৪২ জন।

একইদিন রাঙামাটি সদর উপজেলা থেকে নতুন করে ৭ জন ও কাপ্তাই উপজেলা থেকে নতুন করে ৫ জন করোনা জয়ের মাধ্যমে রাঙামাটিতে সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা দাঁড়ায় ২৬৩ জনে।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ১৭৫ জন, আইসোলেশনে ছিলেন ৯ জন এবং করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ৭ জন।

বৃহস্পতিবার, জুলাই

এইদিন বিকালে রাঙামাটি সদর থেকে নতুন করে ১৪ জন, কাপ্তাই থেকে ৪ জন ও কাউখালী উপজেলা থেকে ২ জন করোনা জয়ের মাধ্যমে রাঙামাটিতে সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা দাঁড়ালো ২৫১ জনে।

বুধবার, জুলাই

এইদিন সকালে রাঙামাটি সদর থেকে নতুন করে ১ জন, কাপ্তাই উপজেলা থেকে ৮ জন ও নানিয়ারচর উপজেলা থেকে ১ জন করোনা জয়ের মাধ্যমে রাঙামাটিতে সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা দাঁড়ায় ২৩১ জনে।

মঙ্গলবার, জুলাই

এইদিন রাঙামাটিতে আরো ৭ জন করোনা পজেটিভ রোগী হিসেবে শনাক্ত হয়। মঙ্গলবার সকালে বিআইটিআইডি হতে আসা ২৯টি রিপোর্টে এই নতুন ৭ জন পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

৭ জনের মধ্যে সদর হতে ৬ জন ও বিলাইছড়ি হতে ১ জন আছে বলে নিশ্চিত করেন ডা. মোস্তফা কামাল। এ নিয়ে রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৯২ জন।

পাশাপাশি রাঙামাটি সদর থেকে নতুন করে ২৬ জন, বাঘাইছড়ি থেকে ২ জন ও রাজস্থলী উপজেলা থেকে ১ জন করোনা জয়ের মাধ্যমে রাঙামাটিতে সুস্থ হওয়া রোগীর সংখ্যা দাঁড়ায় ২২১ জনে।

একইদিন সকালে কাপ্তাই উপজেলা উপসহকারী প্রাণীসম্পদ কর্মকর্তা শিবু চাকমা করোনায় আক্রান্ত হয়ে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। এর মাধ্যমে জেলায় করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৭ জন।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ৪০ জন, আইসোলেশনে ছিলেন ৫ জন।

রবিবার, জুলাই

এইদিন রাঙামাটিতে আরো ২২ জন করোনা পজেটিভ রোগী হিসেবে শনাক্ত হয়। বিকালে সিভাসু হতে আসা রিপোর্টে এই নতুন ২২ জন পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

২২ জনের মধ্যে সদর হতে ১০ জন, বিলাইছড়ি হতে ৪ জন, কাপ্তাইয়ের ৬ জন ও কাউখালী হতে ২ জন আছে বলে নিশ্চিত করেছেন তিনি। এ নিয়ে রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৮৫ জন।

পাশাপাশি কাপ্তাই উপজেলা হতে ১০ জন, সদর হতে ১৬ জন ও রাজস্থলী হতে ১ জনের সুস্থতার মাধ্যমে রাঙ্গামাটিতে সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১৯২ জন।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ৭৬ জন, আইসোলেশনে ছিলেন ৬ জন এবং করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ৬ জন।

এইদিন রাঙামাটি মেডিকেল কলেজের নিচ তলায় পিসিআর ল্যাব স্থাপনের কাজ পুরোদমে শুরু হয়।

শনিবার, জুলাই

এইদিন রাঙামাটিতে আরো ১৭ জন করোনা পজেটিভ রোগী হিসেবে শনাক্ত হয়। দুপুরে সিভাসু হতে আসা রিপোর্টে এই নতুন ১৭ জন পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

১৭ জনের মধ্যে সদর হতে ১৫ জন, বিলাইছড়ি হতে ১ জন ও কাউখালী হতে ১ জন আছে বলে নিশ্চিত করেন ডা. মোস্তফা কামাল। এইদিন রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৬৩ জন।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ৭৯ জন, আইসোলেশনে ছিলেন ৬ জন এবং করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ৬ জন।

শুক্রবার, জুলাই

এইদিন রাঙামাটিতে আরো ২ জন করোনা পজেটিভ রোগী হিসেবে শনাক্ত হয়। সকালে বিআইটিআইডি হতে আসা ১৫ টি রিপোর্টে এই নতুন ২ জন পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়। ২ জনের মধ্যে ১ জন সদরের ও অন্যজন কাপ্তাইয়ের।

এইদিন রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৩৪৬ জন।

পাশাপাশি কাপ্তাই উপজেলা হতে ৪ জন ও সদর হতে ৭ জনের সুস্থতার মাধ্যমে একইদিন রাঙ্গামাটিতে সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১৬৫ জন।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ৯০ জন, আইসোলেশনে ছিলেন ৬ জন এবং করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ৬ জন।

বৃহস্পতিবার, জুলাই

এইদিন রাঙামাটিতে আরো ৪২ জন করোনা পজেটিভ রোগী হিসেবে শনাক্ত হয়। বৃহস্পতিবার সকালে আসা রিপোর্টে এই নতুন ৪২ জন পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

৪২ জনের মধ্যে সদর হতে ২৫ জন, জুরাছড়ি হতে ৯ জন, কাপ্তাই হতে ৬ জন, রাজস্থলী হতে ২ ও লংগদু হতে ২ জন আছে বলে নিশ্চিত করেন করোনা ফোকাল পার্সন ডা. মোস্তফা কামাল। জুরাছড়িতে শনাক্ত ৯ জনের সবাই পুলিশ বলে জানা যায়।

ওইদিন রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৪৩ জন। অন্যদিকে রাঙ্গামাটিতে সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১৫৪ জন।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ৯৮ জন, আইসোলেশনে ছিলেন ১৫ জন এবং করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ৬ জন।

বুধবার, জুলাই

এইদিন রাঙামাটিতে আরো ৩১ জন করোনা পজেটিভ রোগী হিসেবে শনাক্ত হয়। সকালে সিভাসু হতে আসা ৫৬ টি রিপোর্টে এই ৩১ জন পজেটিভ রোগীর তথ্য পাওয়া যায়।

৩১ জনের মধ্যে সদর হতে ১৯ জন, বিলাইছড়ি হতে ১ জন, কাউখালী হতে ২ জন ও কাপ্তাই হতে ৯ জন আছে বলে নিশ্চিত করেন করোনা ফোকাল পার্সন ডা. মোস্তফা কামাল।

এইদিনে রাঙামাটিতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ২৯৯ জন।

পাশাপাশি কাপ্তাই উপজেলা হতে ৬ জন ও রাঙামাটি সদর হতে ১০ জনের সুস্থতার মাধ্যমে রাঙ্গামাটিতে সুস্থ রোগীর সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১৫৪ জন।

ওইদিন পর্যন্ত স্বাস্থ্যবিভাগের হিসাবমতে কোয়ারেন্টাইনে ছিলেন ১০৮ জন, আইসোলেশনে ছিলেন ১৫ জন এবং করোনায় আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেছেন ৬ জন।

৬ মে হতে ৩০ জুনের করোনাপঞ্জীঃ 

করোনাপঞ্জীঃ রাঙামাটিতে বর্তমানে অর্ধেকের চেয়ে বেশী রোগী সুস্থ