ব্রেকিং নিউজ

রাঙামাটিতে ক্যান্সার আক্রান্তের একমাত্র মেয়ের দায়িত্ব নিলেন কানাডা প্রবাসী

॥ ইকবাল হোসেন ॥

রাঙামাটি জেলা শহরে আসমা আক্তার(১৬) পরিবারে ক্যান্সার আক্রান্ত মা-মরিয়ম ছাড়া আপন কেউ নেই। মা প্রায় ৩ বছর যাবৎ ব্লাড ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়ে জীবন-মৃত্যুর সাথে লড়াই করে যাচ্ছে।

এদিকে আসমা রানী দয়াময়ী উচ্চ বিদ্যালয় হতে মানবিক বিভাগ থেকে ২০২০ সালে অনুষ্ঠিত এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ- ৪.০০ পেয়ে উত্তীর্ন হয়েছে। ক্যান্সার আক্রান্ত মায়ের চিকিৎসা এবং নিজ পড়ালেখার অনিশ্চয়তার যখন হাবু-ডুবু খাচ্ছে। ঠিক এ সময়ে মানবিকতার বার্তা নিয়ে আসমার লেখা-পড়ার দায়িত্ব নিলেন মানবিক মানুষ কানাডা প্রবাসী নাসির কাশেম।

তিনি গত ২৭/০৭/২০২০ খ্রিঃ রাঙামাটি জেলা পুলিশের বিশেষ শাখায় কর্মরত এসআই জহিরের মানবিক পোষ্ট দেখে সুদূর কানাডা থেকে তার মানবিক হৃদয় নাড়া দেয়ায়। তিনি আসমার কলেজ ও ইউনিভার্সিটির লেখাপড়ার যাবতীয় দায়িত্ব নিয়ে নেন।

কানাডা প্রবাসী নাসির কাশেম এসআই জহিরের মাধ্যমে গত ২৯/০৭/২০২০খ্রিঃ ব্লাড ক্যান্সার আক্রান্ত মরিয়মের মেয়ে আসমাকে শিক্ষা উপকরন সামগ্রী হস্তান্তরের মাধ্যমে তার লেখাপড়ার দায়িত্ব গ্রহন করেন। শিক্ষা উপকরন পেয়ে ব্লাড ক্যান্সার আক্রান্ত মরিয়ম ও তার মেয়ে আসমা দুঃখের মাঝেও এই যেন ঈদের আনন্দ।

এবিষয়ে এসআই জহির বলেন, সত্যিই অসহায়ত্বের মাঝেও তাদের মুখে কিছুটা আনন্দ দিতে পারে ভালো লাগছে। এইভাবে ভালো থাকুক পৃথিবীর সব অসহায় মানুষ। অন্তরের অন্তঃস্থল থেকে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি প্রিয় মানবিক ভাই নাসির কাসেম ভাইকে।

এদিকে কানাডা প্রবাসী নাসির কাসেম ইতিমধ্যে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব রুখতে সরকারের অঘোষিত লকডাউনের সময় রাঙামাটিতে এসআই জহিরের মাধ্যমে করোনা ক্ষতিগ্রস্থ ১০০ অসহায় পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী দিয়ে সহায়তা করেছেন।

অপরদিকে মানবিক কর্মকান্ডে দ্বারা তিনি দেশ-বিদেশে ব্যাপক প্রসংসিত হয়েছেন। ব্লাড ক্যান্সার আক্রান্ত মরিয়মের মেয়ে আসমার লেখাপড়ার দায়িত্ব নিতে পেরে তিনি আনন্দিত। তিনি বলেন, সমাজে যদি সর্বত্রে বিত্তবানরা এগিয়ে আসে পৃথিবীতে অসহায় মানুষই থাকবে না পৃথিবীর পরিবেশ হবে শান্তিময়।